আলাপন কি এমন জানেন যে, স্বর্গ-মর্ত এক করে তাকে রক্ষা করা হচ্ছে? শুভেন্দু অধিকারী - VedasBD.com

Breaking

Tuesday, 1 June 2021

আলাপন কি এমন জানেন যে, স্বর্গ-মর্ত এক করে তাকে রক্ষা করা হচ্ছে? শুভেন্দু অধিকারী

Does Alapan know that he is being saved by the union of heaven and earth? Subhendu Adhikari

রাজ্যের প্রথম মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে কেন্দ্র করে রাজ্যে সংঘাত এখন চরমে উঠেছে। কলাইকুন্ডা প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ সংক্রান্ত বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারেননি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর সেই রাতেই আলাপনকে দিল্লিতে কাজে যোগদান করার জন্য ডেকে পাঠানো হয়। কিন্তু এই করোনা কালে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে ছাড়তে চায়নি রাজ্য। এমনকি সোমবার ১০ টার আগে এ বিষয়ে দিল্লিকে কড়া চিঠি লেখেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তার পরেও দিল্লি তরফ থেকে জানানো হয়, মঙ্গলবার নর্থ ব্লকে রিপোর্ট করতেই হবে আলাপনকে। এর পরেই আলাপন তার নিজের দায়িত্ব থেকে অবসর নেন।


অন্যদিকে শুভেন্দু অধিকারী ট্যুইটে জানান “বিদায়ী মুখ্য সচিব এমন কী গোপন খবর জানেন যে, তাঁকে আড়াল করতে স্বর্গ-মর্ত্য তোলাপাড় করা হচ্ছে? সাথে সাথে এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও ‘অবিধায়ক মুখ্যমন্ত্রী’ বলে কটাক্ষ করেন তিনি। তিনি বলেন, তার ইগোর জেরেই দেশের ফেডারেল স্ট্রাকচার সম্পূর্ণ ধ্বংস হতে বসেছে। তার অহংকারের জন্যই তিনি নিয়ম ভঙ্গকারি একজন মুখ্য সচিবকে রক্ষা করে চলেছেন। মুখ্যমন্ত্রীর অফিসের আবহাওয়া বিঘ্নিত হচ্ছে দিদির এই আচরণে।

একইসঙ্গে এদিন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের শাস্তিরও দাবি করেন শুভেন্দু। তিনি লেখেন, “আমার দাবি, এইরকম একটি মহামারী এবং বিপর্যয়ের সময়ে চাকরির নিয়ম অমান্য করার জন্য মুখ্য সচিবের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হোক। শুধুমাত্র কিছু হীন রাজনৈতিক উদ্দেশ্য সিদ্ধ করার লক্ষ্যে তাঁর অন্যকে সাহায্য না-করার এই আচরণের নিন্দা জানাই।” এছাড়াও তিনি বলেন, তৃণমূল কংগ্রেস পশ্চিমবঙ্গের মানুষের মুখ রক্ষা করতে ব্যর্থ। তার মতে কর প্রদানকারী জনতার টাকা নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে তারা। সে কথা উল্লেখ করে অপর একটি টুইটে তিনি লেখেন,”করদাতার টাকা লুট করা টিএমসির সবথেকে পছন্দের হবি। না হলে এভাবে প্রতিমাসে আড়াই লাখ টাকার আরামদায়ক বেতনে একজন মুখ্য সচিবকে তার ‘অ্যাডভাইজার’ পদে বসান! করদাতাদের কষ্টার্জিত টাকা আরো অনেক ভালোভাবে ব্যবহার করা যেত।”

No comments:

Post a Comment