অধিক ক্ষমতাধর হয়ে উঠলেন মুকুল রয়! তাকে ঠেকানোই এখন তৃণমূলের মূল চ্যালেঞ্জ! - VedasBD.com

Breaking

Saturday, 6 June 2020

অধিক ক্ষমতাধর হয়ে উঠলেন মুকুল রয়! তাকে ঠেকানোই এখন তৃণমূলের মূল চ্যালেঞ্জ!


২০১৯ এর মুকুল রায় আর ২০২০ এর মুকুল রায়ের মধ্যে এখন অনেক পার্থক্য। বর্তমানে তিনি অনেক বেশি ক্ষমতাধর ও শক্তিশালী। তাঁর দুই হাতেরই শক্তি বেড়েছে। সম্প্রতি বিজেপির রাজ্য কমিটি গঠনের পর তিনি রণসাজে সজ্জিত হয়ে এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে আসরে নামতে চলেছেন। এবার তাঁকে ঠেকানোই চ্যালেঞ্জ তৃণমূল কংগ্রেসের। ২০১৯ লোকসভার আগে ও পরে তৃণমূলে ভাঙন ধরিয়ে কঠিন পরিস্থিতি তৈরি করে দিয়েছিলেন। শেষমেশ তৃণমূলের ভাঙন ঠেকাতে প্রশান্ত কিশোরকে আনতে হয়। মুকুলও নিজেকে গুটিয়ে নেন। আর ভাঙনের পথে যাননি তিনি। কিন্তু ২০২১-এর আগে কী হবে, তা নিয়েই এখন জল্পনা চলছে।
.
২০১৭তে মুকুলের দলববদলের পর মুকুল বিহীন পূর্ণ নির্বাচন তৃণমূল দুটি লড়েছে। দুটিতেই তৃণমূল আশাতীত সাফল্য পায়নি। উল্টে বিজেপিকে কাঙ্খিত সাফল্য দিয়ে চলেছেন তিনি। হাতের তালুর মতো চেনা তৃণমূলকে ভিতরে ভিতরে ঝাঁঝরা করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেই তিনি হাসিল করে নেন জয়। মুকুলের ২০১৮-তে পঞ্চায়েত নির্বাচনই ছিল প্রথম বিজেপিতে যোগ দেওয়ার নির্বাচন। তৃণমূলকে ভেঙেই তিনি জঙ্গলমহলে ও উত্তরবঙ্গে বহু পঞ্চায়েত ও পঞ্চায়েত সমিতি দখল করেন। তারপর ২০১৯ সালে তৃণমূলকে ঝটকা দিয়ে ১৮ জন সাসংদকে জিতিয়ে আনা মুখের কথা নয়।

.
আর এখানে উল্লেখ্য যে, এই ১৮ জন সাংসদের মধ্যে অনেকেই তৃণমূল ভাঙিয়ে আনা। তাঁদের বিজেপিতে যোগদান করানো থেকে টিকিটে দেওয়া এবং সাংসদ বানানো কম সাফল্যের নয় এই ক্ষুদ্র অবসরে। এবার সেই মুকুল রায়ই প্রভূত ক্ষমতা অর্জন করে নিয়েছেন বিজেপির রাজ্য কমিটি রদবদলে। মোদী-শাহরা বিজেপিতে এখন মুকুল রায়কে একেবারে ফ্রি করে দিয়েছেন। তাঁকে যে কোনও পজিশনে খেলার রাস্তা তৈরি করে দিয়েছেন। মুকুল অনুগামীদের বসানো হয়েছে এমন পদে, যাঁদেরকে দিয়ে তৃণমূলকে পিষে দিতে পারেন তিনি। বিজেপির রাজ্য কমিটিতে তিনি স্থান না পেলেও আদপে তাঁর হাতই শক্ত করে দেওয়া হয়েছে।

No comments:

Post a comment