অমিত শাহকে আমরা কেন হিসেব দেব! অমিত শাহ হিসাব চাওয়ার কে? আক্রমণ চন্দ্রিমার! - VedasBD.com

Breaking

Tuesday, 9 June 2020

অমিত শাহকে আমরা কেন হিসেব দেব! অমিত শাহ হিসাব চাওয়ার কে? আক্রমণ চন্দ্রিমার!


রাজ্যে প্রথম ভার্চুয়াল সভা করে চমকে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ৷ গতকালকের সবার পরে বিরোধীরা একের পর এক কটাক্ষ করে চলেছে সভা ঘিরে৷ আর এই সভাকে ঘিরে দিনভর কটাক্ষ করে চলেছে তৃণমূলের একাধিক নেতা মন্ত্রীরা৷ রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য তৃণমূলের তরফ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেছেন৷ গতকালকে সভায় অমিত সাহ মুখ্যমন্ত্রীর এবং তার দলের উদ্দেশ্যে রাজ্যজুড়ে কাজের হিসেব চেয়েছেন৷ সেই প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য অমিত শাহের জবাবে বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধপাধ্যায়ের কাজের হিসেব চাওয়ার অধিকার অমিত শাহের নেই৷ কাজের হিসেব চাওয়ার অধিকার যদি থেকে থাকে,সেটা রাজ্যের মানুষের আছে এবং সেই হিসেব মমতা বন্দোপাধ্যায় রাজ্যের মানুষকে দিচ্ছেন এবং আগামী দিনেও দেবেন৷ এই বিষয়ে অমিত শাহের কোন মাথাব্যাথা করার দরকার নেই৷

.
তিনি এই প্রসঙ্গে জানতে চেয়েছেন , অমিত শাহ পশ্চিমবঙ্গের জন্য কি করেছেন ৷ বাংলার প্রাপ্য টাকা রাজ্যকে এখনো দেননি তারা ৷ এই সময় মানুষের বাঁচার জন্য লড়াই লড়ছে , তাই এই সময় মানুষকে ভার্চুয়াল সভা করে বুঝিয়ে কিছু লাভ হবে না ৷ এখন রাজনীতি করার সময় নয় ৷ নতুন কোন প্রকল্প ঘোষণা করা হয়নি, অথচ কেন্দ্র বলছে নতুন কোন প্রকল্প এই আর্থিক বছরে হবে না৷ আমরাও টাকার হিসেব চাইছি, কেন নতুন প্রকল্প হবে না৷ পিএম কেয়ারস কত টাকা জমা পড়েছে তার হিসেব আমরা চাইছি কিন্তু আমাদেরকে সেই হিসেব দিচ্ছে না৷ হিসেব চাইলে বলছে আর টি আই-এর বাইরে রয়েছে পিএম কেয়ারস ফান্ড৷ যদি রাজ্যের জনগণ হিসেব চাই আমরা দিতে রাজি আছি ৷ কিন্তু উনি হিসাব চাইলে আমরা দেবো না ৷ হিসাব চাওয়ার উনিক কে?

.
মঙ্গলবার বিজেপির ভার্চুয়াল সভার পরেই দলীয় নির্দেশে উত্তর দম দম বিধানসভা কেন্দ্রে সাংবাদিক সম্মেলন করে কার্যত চাঁছাছোলা ভাষায় আক্রমণ করে অমিত শাহকে চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য৷ এই সাংবাদিক সম্মেলনে সাথে ছিলেন দুই পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর প্রধান সুবোধ চক্রবর্তী, তৃপ্তি মজুমদার, প্রশাসকমণ্ডলীর সদস্য বিধান বিশ্বাস, প্রবীর সাহা প্রমুখ।সাংবাদিকদের করা প্রশ্নের উত্তরে চন্দ্রিমা বলেন, কেন্দ্র থেকে উনারা রাজ্যকে করোনা এক্সপ্রেসে ভরে দিয়েছেন৷ কোন পরিকল্পনা না করে,রাজ্যকে না জানিয়ে মানুষকে ট্রেনে পাঠিয়েছেন৷ ওটা কি শ্রমিক এক্সপ্রেস? এছাড়াও অমিত শাহের রাজ্যের কৃষকদের তালিকা চাওয়ার প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেছেন কৃষকদের তালিকা চাওয়ার উনি কে? রাজ্যের কৃষকদের তালিকা পাঠানোর মতো কোনো পরিস্থিতি আসেনি৷ তিনি বিজেপির হয়ে সভা করতে এসে রাজ্যের তালিকা চাইতে পারেনা৷ যেখানে দেওয়ার দরকার সেখানে দেওয়া হয়েছে৷ সবার আগে আমাদের পাওনা টাকা মিটিয়ে দিক কেন্দ্র৷

No comments:

Post a comment