লাশগুলোকে এসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে! এটাই কি "এগিয়ে বাংলা" মমতাকে কটাক্ষ দিলীপের! - VedasBD.com

Breaking

Thursday, 11 June 2020

লাশগুলোকে এসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে! এটাই কি "এগিয়ে বাংলা" মমতাকে কটাক্ষ দিলীপের!


গড়িয়ার একটা শ্মশানে ১৩টা লাশ এসিডে গলানো অবস্থায় রাখা ছিল। আমরা তো বুঝতে পারছি না শ্মশানে কেন লাশ রাখা আছে। মৃতদেহ মর্গে থাকার কথা। সেখানেই সুরক্ষিত থাকবে। কী রহস্যজনক কারণে সেগুলি শ্মশানে রাখা ছিল? দিলীপবাবুর দাবি, ‘ওই ভিডিয়ো দেখে মানুষের রাগ হচ্ছে। যে মৃতদেহের প্রতি এই অপমান কেন? শরীরের থেকে চামড়া খসে পড়ছে। মাস খানেকের বেশি পুরনো সেই লাশ। এভাবে আমরা লাশ রাখতে কোথাও দেখিনি।‘  বিজেপির রাজ্য সভাপতির প্রশ্ন, ‘এই ভিডিয়ো যারা দেখছেন সবার মনের মধ্যে একটা আত্মগ্লানি আসছে। যে মৃতদের সামান্য সম্মান আমরা দিতে পারি না?

.
সাংবাদিক সম্মেলনে দিলীপ ঘোষ বলেন, তিনি ২০১০ সালের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথা মনে করিয়ে দিতে চান। সেই সময় লালগড়ে পুলিশের সঙ্গে মাওবাদীদের এনকাউন্টার হয়েছিল। যেসব মাওবাদী মারা গিয়েছিল তাঁদের বাঁশে করে ঝুলিয়ে আনা হয়েছিল। সেই ঘটনায় প্রতিবাদ করে সারা বাংলা স্তব্ধ করে দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তখনকার মাওবাদীদের মানবাধিকারের জন্য রাস্তায় নেমেছিলেন। সম্মান দেওয়ার দাবি তুলেছিলেন। কিন্তু এখন করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতদের দেহের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হচ্ছে না। মুখ্যমন্ত্রী বাংলার সাধারণ মানুষের সঙ্গে যে ব্যবহার শুরু করেছেন, তা শত্রুদের সঙ্গেও কেউ করে না। এমনটাই মন্তব্য করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।
.
দিলীপ ঘোষ কটাক্ষ করে বলেছেন, এটাই কি এগিয়ে বাংলা। আর সেই বাংলার গর্বের মুখ্যমন্ত্রী ইনি, যিনি বাংলার সাধারণ মানুষের সঙ্গে যে ব্যবহার করছেন, তা শত্রুর সঙ্গে কেউ করে না। বিদেশি শত্রু যাঁরা মারা যান তাঁদের প্রতিও এরকম অসম্মান কেউ করে না। তাঁর অভিযোগ লাশগুলোকে অ্যাসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে দেহ থেকে মাংস খুলে পড়ছে। যাতে পরিচয় লুপ্ত করা যায়। এছাড়াও দিলীপ ঘোষের অভিযোগ, এর আগেও বহু জায়গাই লাশ লুকোতে গিয়ে পুলিশ সাধারণ বাধার মুখে পড়েছিল। এতে সরকারের মানসিকতা প্রকট হয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

No comments:

Post a comment