মথুরা, বৃন্দাবনে চলছে জমিয়ে হোলির উৎসব, বিদেশ থেকেও এসছেন লক্ষ লক্ষ মানুষ - VedasBD.com

Breaking

Friday, 6 March 2020

মথুরা, বৃন্দাবনে চলছে জমিয়ে হোলির উৎসব, বিদেশ থেকেও এসছেন লক্ষ লক্ষ মানুষ

মথুরা, বৃন্দাবনে চলছে জমিয়ে হোলির উৎসব, বিদেশ থেকেও এসছেন লক্ষ লক্ষ মানুষ

মথুরা, বৃন্দাবন, বারসানা এবং নন্দগাঁওতে একটু অন্য রকম ভাবেই দোল উৎসব পালিত হয়। যা দেখার টানে দেশ বিদেশ থেকে হাজার হাজার মানুষ এখানে আসে। বৃন্দাবনের দোল উৎসব বৃন্দাবনের দোল উৎসবঃমথুরা , নন্দগাঁও, বৃন্দাবন, বারসানা ৪০ দিনের জন্য দোল উদযাপন করা হয়। ব্রিজ ধামের প্রত্যেকটি স্থানে দোল খেলার স্বাদ ভিন্ন, তবে বারসান হোলি একেবারেই আলাদা যাকে বলা হয় লাথ মার হোলি। লথ মার হোলি বা দোলের পিছনে কারণ বিশেষ আকর্ষণীয়। কারণ সেখানকার লোকজনদের মতে কৃষ্ণ নন্দগাঁও থেকে বারসানা পর্যন্ত দোল খেলতে আসেন রাঁধার সঙ্গে হোলি খেলে এবং তাদেরকে জ্বালাতেন। বারসানার নারীরা লাঠি দিয়ে কৃষ্ণ এবং তার বন্ধুদের মজা করে আঘাত করতেন।

একইভাবে নন্দগাঁওতে হোলি খেলা হয়, যেখানে বারসানা পুরুষেরা নন্দগাঁও আসে সেখানকার মহিলাদের সঙ্গে হোলি খেলতে। লাথ মার হোলি শুধুমাত্র নন্দগাঁও এবং বারানাসাতেই উদযাপন করা হয়। লাথ মার হোলিতে বারসানা এবং নন্দগাঁও ছাড়া বাইরের কেউ অংশগ্রহণ করার অনুমতি নেই। বৃন্দাবনে বাঁকে বিহারী মন্দিরে হোলি উৎসব অন্যদিকে বৃন্দাবনে বাঁকে বিহারী মন্দিরে বাইরের লোকেরা আনন্দের সহিত হোলি উদযাপন করতে পারে।
.
বৃন্দাবনে হোলি গুলালের সঙ্গে খেলা হয়। বৃন্দাবনে বাঁকে বিহারী মন্দিরে রাস্তার সামনে গেলেই দেখা পাওয়া যাবে হাজার হাজার বিদেশি মানুষের ঢল। দেখতে পাবেন আবিরে রাঙা রঙিন মানুষ। সেখানে এমন কেউ নেই যে হোলি উৎসব পালন করে না। সেখানকার মানুষরা আবির ভর্তি প্যাকেট হাতে নিয়ে রাঁধে রাঁধে বলে আবির ছড়িয়ে দেয়। মন্দিরে ভেতরে প্রবেশ করার সময় বালতি এবং পিচকারি দিয়ে মানুষের জামা কাপড় রঙিন করে দেয়। সেই মন্দিরে একটা অদ্ভুত অনুভূতি পাবেন। ভিতরে প্রভু কৃষ্ণ মূর্তিকে ঘিরে খেলা হচ্ছে আবির এবং প্রচুর মানুষের উপস্থিতি সঙ্গে রাধে রাধে গর্জন। যেন এক অদ্ভুত পরিবেশের মেলবন্ধন।
.
মথুরাথে হোলি উৎসবঃ মথুরাথে ধুমধাম করে হোলি পালন করা হয়, সাতদিন আগে থেকে এই উৎসব পালিত হয়, এবং শেষ দিন অবধি চলে। বর্তমানে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে হোলি উৎসব মানানো হয়। তাই নয় দেশের বাইরে বিদেশিদের মধ্যেও এর প্রচলন দেখা যায়। দোল পূর্ণিমা দিন হোলির রঙে সবাই নিজেদের রাঙ্গিয়ে তলে, সমস্ত বিভেদ ভুলে এক হয়ে যায়। আমাদের কলকাতাও মহা ধুমধাম এর সাথে পালিত হয়। ছোট থেকে শুরু করে বড় সবাই রঙর এর উৎসবে মেতে ওঠে। এবং রঙ খেলার পর মিষ্টি মুখ করে এই আনন্দের সমাপ্তি ঘটে।

No comments:

Post a Comment