নামাজ না পড়লে বেতন কাটা সংক্রান্ত নোটিশ সমালোচনার চাপে পড়ে সংশোধন - VedasBD.com

Breaking

Tuesday, 18 February 2020

নামাজ না পড়লে বেতন কাটা সংক্রান্ত নোটিশ সমালোচনার চাপে পড়ে সংশোধন

নামাজ না পড়লে বেতন কাটা সংক্রান্ত নোটিশ সমালোচনার চাপে পড়ে সংশোধন

কাজ করার ফাঁকে তিন ওয়াক্ত নামাজ পড়তে হবে। জোহর, আসর ও মাগরিব এই তিন ওয়াক্ত নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় পাঞ্চ মেশিনে ফিঙ্গার পাঞ্চ করতে হবে। যদি কোনও স্টাফ মাসে সাত ওয়াক্ত পাঞ্চ করেননি বলে ধরা পড়ে, তাহলে তার এক দিনের বেতন কাটা হবে। এই নোটিশ জারির পর সমালোচনার শিকার হয় গাজীপুর মহানগরের কাশিমপুর কোনাবাড়ি এলাকায় অবস্থিত মাল্টিফ্যাবস কারখানা। অবশেষে নোটিশ জারির আট দিন পর কাল সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ওই নির্দেশ সংশোধন করেছে কারখানা কর্তৃপক্ষ।
.
গত ৯ ফেব্রুয়ারি জারি করা নোটিশে কারখানার ব্যবস্থাপকীয় কর্মকর্তাদের জন্য মসজিদে গিয়ে তিন ওয়াক্ত নামাজ আদায়ের প্রতি বাধ্যবাধকতা দেওয়া হয়। নিজেদের ডেস্কে জায়নামাজ বিছিয়ে নামাজের অভ্যাস পরিবর্তনের কথা বলা হয় ওই নোটিশে। মানবসম্পদ ও প্রশাসন বিভাগের সহকারী মহা ব্যবস্থাপক (এজিএম) অ্যাডভোকেট আবু শিহাব স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে অফিস নির্দেশনাটি জারি করা হয়।
.
তবে ১৭ ফেব্রুয়ারি সংশোধিত নোটিশে বলা হয়, ‘নামাজের জন্য মুসলমান কর্মকর্তাদের উপস্থিতি বাড়ানোর জন্য যে নোটিশটি দেওয়া হয়েছিল তা শুধু উৎসাহ দেওয়ার জন্য। প্রকৃতপক্ষে বেতন কাটার কোনও উদ্দেশ্য ছিল না। ভুল করে বেতন কাটার বিষয়টি উল্লেখ করায় আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

এ বিষয়ে কারখানার মানবসম্পদ বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক এনামুল করিম বলেন, ‘গত ৯ তারিখের নোটিশে নামাজ পড়ার বিষয়ে বেতন কাটার যে সতর্কতা দেওয়া হয়েছিল, এটা ভুল করে দেওয়া হয়েছিল। আমরা আসলে এটা না বুঝে করেছি, এটার জন্য দুঃখিত। নামাজের যে নোটিশটা দেওয়া হয়েছে, এটা মূলত শৃঙ্খলা ও ভ্রাতৃত্ববোধ তৈরির জন্য দেওয়া হয়। তবে যে কেউ নির্দিষ্ট সময়ের পড়ে নামাজ পড়তে পারবেন।’
.
কারখানার উৎপাদন ব্যবস্থাপক (প্রোডাকশন ম্যানেজার) ফারিন বলেন, ‘এ কারখানার রফতানি পণ্যের পরিমাণ প্রতি মাসে ১৮ লাখ পিস। এখানে সাম্প্রদায়িক কোনও ভেদাভেদ নেই। যে যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করেন।

No comments:

Post a comment